ঢাকা, সোমবার, ১০ই মাঘ, ১৪২৩ বঙ্গাব্দ, ২৩শে জানুয়ারি, ২০১৭ ইং, ২৪শে রবিউস-সানি, ১৪৩৮ হিজরী
bartabazar viber

থানায় ঝুলিয়ে অমানবিক নির্যাতনের এই ছবিটি কার?
বার্তা বাজার ডেস্ক | প্রকাশিত: অপরাহ্ণ ২:৪১ , জানুয়ারি ৬, ২০১৭

যশোরে ‘দুই লাখ টাকা চাঁদা আদায়ের’ জন্য এক যুবককে থানায় ধরে নিয়ে গিয়ে উল্টো করে ঝুলিয়ে নির্যাতনের ছবি ছড়িয়ে পরে ফেসবুকে। পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে ৫০ হাজার টাকা পেয়ে একদিন পরেই ওই যুবককে ছেড়ে দেওয়ার। এ নিয়ে এলাকাবাসী, পুলিশ ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়। তবে পুলিশ  এবং ‘সেই যুবক’ আবু সাঈদ (৩২) সব অভিযোগ অস্বীকার করেছে। আবু সাঈদ দাবি করেছে, পুলিশ তাকে কোনও নির্যাতন করেনি। তার বিরুদ্ধে অভিযোগের সত্যতা না পাওয়ায় থানায় ধরে নেওয়ার একদিন পরেই তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার (৫ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় এক যুবককে কোতোয়ালি থানার ভেতরে দুটি টেবিলের মাঝখানে মোটা একটি লাঠির মাধ্যমে উল্টো করে ঝুলিয়ে নির্যাতনের একটি ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। কিন্তু ছবিটি কার এবং কী কারণে তাকে থানায় এভাবে রাখা হয়েছে- সে বিষয়ে কোনও কিছু জানা সম্ভব হয়নি। পরে জানা যায়, ওই যুবকের নাম আবু সাঈদ। বাড়ি যশোর সদরের তালবাড়িয়া কলেজপাড়ায়।

পরিবারের সদস্য ও স্থানীয় লোকজন জানান, ৪ জানুয়ারি রাত সাড়ে ৯টার দিকে তালবাড়িয়া কলেজপাড়া থেকে সাঈদকে আটক করে সাদা পোশাকের পুলিশ সদস্যরা। কোতোয়ালি থানার কথিত সিভিল টিমের সদস্য এসআই নাজমুল ও এএসআই হাদিকুর রহমান তাকে ধরে নিয়ে যান।

তবে ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া ছবির সূত্র ধরে অভিযোগ

ওঠে, সাঈদকে হ্যান্ডকাফ পরিয়ে দুই টেবিলের মাঝখানে উল্টো করে ঝুলিয়ে মারধর করেন পুলিশের কর্মকর্তারা। একইসঙ্গে সাঈদকে ছাড়িয়ে নেওয়ার জন্য তার পরিবারের কাছে ২ লাখ টাকা দাবি করা হয়। পরে ৫০ হাজার টাকার বিনিময়ে তাকে পরদিন ছেড়ে দেওয়া হয়।

অভিযুক্ত এসআই নাজমুল হোসেনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে বৃহস্পতিবার রাতে তিনি সাংবাদিকদের জানান, তিনি গত দুদিন ধরে ঢাকায় অবস্থান করছেন। সাঈদ নামে কাউকে আটক বা চাঁদা আদায়ের সঙ্গে তিনি জড়িত নন।

এএসআই হাদিকুর রহমান জানান, এমন কোনও ঘটনা ঘটেনি। সাংবাদিকদের ভুল তথ্য দিয়ে বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে।

আবু সাঈদ বেলা শুক্রবার ১২টার দিকে সাংবাদিকদের বলেন, ‘বুধবার রাতে এলাকার একটি চায়ের দোকান থেকে পুলিশ আমাকে ধরে নিয়ে যায়। পরে থানায় নিয়ে আমি দুই নম্বর ব্যবসা করি কিনা জানতে চায়। আমি তো ওইসব দুই নম্বরি ব্যবসার সঙ্গে জড়িত নই। সেকারণে বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে আমাকে ছেড়ে দেয়। আমাকে কোনও টর্চার করেনি পুলিশ।’

এ বিষয়ে সাঈদের বড়ভাই আতিয়ার রহমান বলেন, ‘বুধবার রাতে আমার ভাইকে পুলিশ ধরে নিয়ে যায়। কিন্তু তার বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ না থাকায় পুলিশ তাকে ছেড়ে দিয়েছে। পুলিশ কোনও টাকা নেয়নি কিংবা তাকে মারধরও করেনি।’

সাঈদের স্ত্রী বিলকিস খাতুন ও ছোটভাই আশিকুর রহমানও এর আগে দাবি করেন ফেসবুকে যে উল্টো ছবি দেখা যাচ্ছে- সেটা তার ভাইয়ের না।

তবে  নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় একজন জানান, শুক্রবার সকালে সাংবাদিকরা আসার আগেই এলাকায় পুলিশ এসেছিল। তারা সাঈদদের বাড়িতেও গিয়েছিল। ভয়ে এখন ওই বাড়ির লোকজন সত্য কথা বলছে না।

স্থানীয় বাসিন্দা হাফিজুর রহমান ও কামরুল ইসলাম জানান, সাঈদ নেশা করে। তবে মাদকের ব্যবসা করে কিনা তা তাদের জানা নেই।

এই ওয়ার্ডের (৯ নম্বর ওয়ার্ড, নওয়াপাড়া ইউনিয়ন) ইউপি সদস্য আসমত আলী চাকলাদার জানান,  বুধবার রাতে পুলিশ তাকে ধরে নিয়ে গিয়েছিল বলে তিনি শুনেছেন। ৪৯ অথবা ৫০ হাজার টাকার বিনিময়ে সাঈদ ছাড়া পেয়েছে।

তিনি আরও জানান, সাঈদের বিরুদ্ধে এলাকায় ইয়াবা ব্যবসার অভিযোগ রয়েছে। আগে সে ফেনসিডিল ব্যবসা করতো বলে তার কাছে অভিযোগ রয়েছে।  ফেসবুকে উল্টো করে যে যুবকের ছবি দেওয়া হয়েছে- সেটি সাঈদের বলে তিনিসহ বাজারের কয়েকজন শনাক্ত করেন।

এ বিষয়ে কোতোয়ালী থানার ওসি ইলিয়াস হোসেন বলেন, ‘ছবিটি এখন নয়, বেশ আগে তোলা। আর এসআই নাজমুল একটি মামলার সাক্ষ্য দিতে সিসি নিয়ে ঢাকায় রয়েছেন। তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সত্য নয়।’

তবে থানার একটি সূত্র জানায়, যে পুলিশ অফিসারদের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠেছে, তাদেরকে সংশ্লিষ্ট দায়িত্ব (সিভিল টিম) থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

বার্তা বাজার.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।